সাইবার চ্যাম্প

বাংলাদেশের প্রথম ই-সচেতনতা অলিম্পিয়াড

‘উগ্রবাদের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের জন্য ই-সচেতনতা’ প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশের নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের নিয়ে প্রথমবারের মত আয়োজন করা হচ্ছে সাইবার চ্যাম্প ই-অলিম্পিয়াড। এই অলিম্পিয়াডের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট হচ্ছে www.cyberchamp.com.bd। এই সাইটে থাকছে ইন্টারনেট সচেতনতা ও সুরক্ষিত ইন্টারনেটের ব্যবহার নিয়ে বিভিন্ন শিক্ষামূলক কনটেন্ট। এই কনটেন্টগুলো যেকোনো শিক্ষার্থীরা পড়তে পারবে। সাথে কনটেন্টগুলো নিয়ে থাকছে কুইজ কনটেস্ট। এই কুইজগুলোতে অংশ নিতে হলে প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। 

প্রতিটি কনটেন্টের ওপর একটি করে কুইজ রাউন্ড থাকবে। ওই নির্দিষ্ট কনটেন্টের মধ্যেই কুইজের উত্তর থাকবে। তাই একটি কনটেন্ট পড়ে সেই কুইজে অংশ নিলে কুইজে ভালো করা যাবে। 

১। সব মিলিয়ে থাকছে ২০ রাউন্ড কুইজ।

২। প্রতি কুইজ রাউন্ডে ১০টি করে প্রশ্ন থাকবে। 

৩। প্রতি সপ্তাহেই আমরা হাজির হবো নতুন একটি কুইজ নিয়ে। 

৪। প্রতি রাউন্ডের জন্য নির্ধারিত সপ্তাহে তুমি কেবল একবারই ওই কুইজটি খেলতে পারবে।

৫। প্রতি রাউন্ডে সেরা ১০ জন স্কোরারের জন্য থাকছে আকর্ষণীয় সব পুরস্কার। প্রতি রাউন্ডে দ্রুততম সময়ে সবচেয়ে বেশি সঠিক উত্তর প্রদানকারী ১০ জন হবে বিজয়ী। বিজয়ী নির্বাচন করার ক্ষেত্রে ডিনেট-এর সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে।

৬। প্রতিটি রাউন্ডের নির্ধারিত সপ্তাহের শেষে তোমরা কুইজটি যতবার খুশি ততবার খেলতে পারবে। এবং ঐ রাউন্ডে তোমার সর্বোচ্চ স্কোর ব্যক্তিগত সর্বমোট পয়েন্টের সাথে যোগ হবে। তবে খেয়াল রেখো, কেউ নির্ধারিত সময়ের পরে কুইজ খেললে ঐ বিশেষ রাউন্ডের ক্ষেত্রে পুরস্কারের জন্য বিবেচিত হবে না। 

৭। ২০ রাউন্ড কুইজ শেষে সম্মিলিত পয়েন্ট তালিকায় থাকা সেরা ২০০ জন শিক্ষার্থী পাবে সাইবার চ্যাম্প গ্র্যান্ড ফিনালে’তে আসার টিকেট। এদের মধ্যে চূড়ান্ত কুইজ শেষে সেরা ১০ জনকে পুরস্কৃত করা হবে ফিনালে’তে আর সর্বোচ্চ স্কোরার হবে বাংলাদেশের প্রথম সাইবার চ্যাম্প। 

৮। আমরা সরাসরি আসছি ঢাকা, চট্টগ্রাম ও রাজশাহীর ১০০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে, সেখানে সুরক্ষিত ইন্টারনেট এর বিভিন্ন দিক নিয়ে আয়োজন করবো লার্নিং সেশন। প্রতিটি লার্নিং সেশনের সর্বোচ্চ স্কোরার সহ সেরা ১৫০ স্কোরার হবে ক্যাম্পাস সাইবার চ্যাম্প। তারাও আসবে গ্র্যান্ড ফিনালে’তে আর ফিনালেতে এদের মধ্য থেকে সেরা ৫ জনের জন্য থাকবে পুরস্কার।  

৯। পিয়ার লার্নিং সেশন থেকে ৫০ জন শিক্ষার্থী ভলান্টিয়ার সাইবার চ্যাম্প হিসেবে পাবে গ্র্যান্ড ফিনালে’র টিকেট, সেখানে এদের মধ্যে থেকে সেরা ৫ জন পাবে দারুণ সব পুরস্কার।  

১০। শুধুমাত্র মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষার্থীরাই কুইজের পুরস্কারের জন্য বিবেচিত হবে। অন্যান্য অংশগ্রহণকারীরা ২০ রাউন্ড কুইজ শেষে পাবে একটি অনলাইন সার্টিফিকেট। ২০ রাউন্ডের সবগুলোতে অংশ নিয়ে যারা ৬০% পয়েন্ট স্কোর করতে পারবে, তারা সবাই পাবে এই বিশেষ অনলাইন সার্টিফিকেট।

অলিম্পিয়াডে অংশগ্রহণকারী সকল প্রতিযোগীর জন্য থাকছেঃ পেনড্রাইভ, টি-শার্ট, ব্যাজ।

সাইবার চ্যাম্প বিজয়ীর জন্য থাকছেঃ ট্রফি, ল্যাপটপ, মেডেল, সার্টিফিকেট।

পরবর্তী শীর্ষ নয় স্কোরারের জন্য থাকছেঃ ট্যাবলেট কম্পিউটার, মেডেল, সার্টিফিকেট।

ক্যাম্পাস সাইবার চ্যাম্পের মধ্যে শীর্ষ পাঁচ স্কোরারের জন্য থাকছেঃ ট্যাবলেট কম্পিউটার, মেডেল, সার্টিফিকেট।

ভলান্টিয়ার সাইবার চ্যাম্পের মধ্যে শীর্ষ পাঁচ স্কোরারের জন্য থাকছেঃ ট্যাবলেট কম্পিউটার, মেডেল, সার্টিফিকেট।

বাংলাদেশের প্রথম ই-সচেতনতা